নন্দীগ্রাম মামলায় ভারপ্রাপ্ত বিচারপতির নিরপেক্ষতার উপর প্রশ্ন তুলল তৃণমূল কংগ্রেস!



২ মে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর দেখা যায় যে বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারীর কাছে মাত্র ২০০০ এর কম ভোটে পরাজিত হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। তৃণমূলের তরফ থেকে বরাবর দাবি করা হয় যে নির্বাচনী প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করে শুভেন্দু অধিকারী পরাজিত হওয়ার পরেও কারসাজি করে নিজেকে ভোটে এগিয়ে নিয়েছেন। শুরু থেকেই তৃণমূলের তরফ থেকে কোর্টে যাওয়ার হুমকি দেওয়া হচ্ছিল। গতকাল কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি কৌশিক চন্দর সিঙ্গল বেঞ্চে এই সংক্রান্ত মামলা দায়ের করা হয় তৃণমূলের পক্ষ থেকে। যদিও আজ সেই মামলা আগামী ২৪ জুন শুনানি হবে বলে জানিয়ে দিয়েছেন বিচারপতি।

কিন্তু এবার স্বয়ং বিচারপতি নিরপেক্ষতার উপর প্রশ্ন তুলল তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূলের তরফ থেকে ডেরেক ও’ব্রায়েন এবং কুনাল ঘোষ দু’টি ছবি টুইট করেন যেখানে দেখা যাচ্ছে যে বিজেপির আইন সংক্রান্ত একটি আলোচনা সভায় দিলীপ ঘোষের পাশাপাশি উপস্থিত রয়েছেন কৌশিক চন্দ। ডেরেক ও’ব্রায়নের করা এই টুইট রিটুইট করেন বরিষ্ঠ আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ। ডেরেক ও’ব্রায়েন আরো দাবি করেন যে বিচারপতি বিজেপির হয়ে ২০১৩ সালের একটি মামলায় সওয়াল করেছিলেন। তাই অন্য বিচারপতির বেঞ্চে মামলা স্থানান্তরিত করার আবেদন জানিয়েছেন তারা।

যদিও বিজেপি দাবি করেছে যে তৃণমূল জানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নন্দীগ্রামে পরাজয় হয়েছে এবং তাই আদালতে মামলা হেরে যাওয়ার ভয়ে আগে থেকেই বিচারপতিদের উপর প্রশ্ন তুলে হারের অজুহাত খোঁজার চেষ্টা হচ্ছে।