করোনার উৎপত্তিস্থল চিন নয় ভারত, দাবি চিনা গবেষকদের

তিয়াষা দাস : কোথায় জন্ম করোনা ভাইরাসের? সকলে চিনকে দায়ী করলেও। চিন বলছে অন্য কথা। এতদিন তাঁরা বলছিল, করোনার জনক ইতালি, আমেরিকা আর ইউরোপ। এবার তাঁরা আঙুল তুলল ভারতের দিকে। তাঁদের নতুন দাবি, গত বছর গ্রীষ্মে ভারতেই নাকি জন্ম নেয় এই ভয়াবহ ভাইরাস।২০১৯ সালের গ্রীষ্মেই এই ভাইরাসের জন্ম হয় ভারতের বুকে। গ্রীষ্মের প্রখর গরমে, জল সংকটের কারণে কোনও প্রাণীর শরীর থেকে ভাইরাস ছড়িয়েছে মানুষ পর্যন্ত। এর পরই ভারত থেকে অজানা ভাবে চিনের উহানে পৌঁছে যায় সেই ভাইরাস।

বিশ্বের কাছে করোনার আঁতুড়ঘর নামে পরিচিত চিন, নানান সময়ে নানান কথা বলেছে। বেশ কিছুদিন ধরে এভাবেই করোনাভাইরাসের জন্ম ইস্যুতে নিজেদের বাঁচানোর চেষ্টা করছেন চিনা বিজ্ঞানীরা। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হয়েছিল উহানের মাংসের বাজার থেকেই করোনা ভাইরাসের উৎপত্তি।

চাইনিজ অ্যাকাডেমি অফ সায়েন্সেসের একদল গবেষক দাবি করেছেন, ভারতের দূষিত জলের মাধ্যমেই জন্তু থেকে মানুষের শরীরে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে, তারপর কোনও এক অজ্ঞাত কারণে তা চলে যায় উহানে। দুর্ভাগ্যক্রমে সেখানেই সেটা প্রথম ধরা পড়ে, আর সবাই দুষতে থাকে গোবেচারা চিনকে। কিন্তু যদি দোষ কারও থেকে থাকে, তবে সেটা ভারতের, চিনের কখনওই নয়। অর্থাৎ, ভাগ্য দোষেই চিনের কপালে এহেন দাগ লেগেছে।

যদিও চিনা বিজ্ঞানীদের এই দাবি সম্পূর্ণভাবে উড়িয়ে দিয়েছেন স্কটল্যান্ডের গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞ ডেভিড রবার্টসন। তিনি বলেছেন, চিনাদের এই দাবি পুরোপুরি ভুল, কোনওভাবেই তা ওরা প্রমাণ করতে পারবেনা।

এই প্রথম অবশ্য নয়, এর আগেও চিন কর্তৃপক্ষ কোনও প্রমাণ ছাড়াই ইতালি, আমেরিকার দিকে আঙুল তুলেছিল, করোনা ছড়ানোর জন্য। আর এখন যখন লাদাখ নিয়ে ভারত-চিনের টানাপোড়েন চরমে উঠেছে, তখন এভাবেই নানান অযৌক্তিক ব্যাখ্যা দেখিয়ে চিন নিজের দোষ ঢাকতে চাইছে। বলা ভালো ভারতের ওপর দোষ চাপাচ্ছে। যদিও বিশ্বের সমস্ত বিজ্ঞানীরা তথা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, করোনার উৎপত্তি চিনেই।