“বিধায়ক হব” আবদারে লক্ষ লক্ষ আবেদন বিজেপিতে !

আগামী বছর বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে লড়াইয়ের ময়দানে সুচাগ্র মেদিনী ছাড়তে রাজি নয় বিজেপি। বরং সাম্প্রতিক ঘটনাপরম্পরায় চোখ রাখলে দেখা যাবে বিজেপি বেশ খানিকটা সুবিধাজনক জায়গাতেই আছে।
তাই বিজেপির বিধায়ক পদপ্রার্থী হতে চেয়ে আবদারে আবেদনে ভরে উঠছে বিজেপি দলীয় কার্যালয়গুলি। শুধু হেস্টিংস বা মুরলীধর সেন স্ট্রিটের কার্যালয়েই নয়, বিজেপি নেতারা যেখানেই যাচ্ছেন তা সে দলীয় সভা হোক কিংবা জনসমাবেশ কাতারে কাতারে মানুষ বিজেপির বিধায়ক হতে চেয়ে আবদার জুড়ে দিচ্ছেন।
এ প্রসঙ্গে বিজেপির বর্ষীয়ান নেতা এবং সহ সভাপতি বিশ্বপ্রিয় রায়চৌধুরীকে খবরওয়ালা টিভির পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান এই আবেগ, উৎসাহ মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত বহিঃপ্রকাশ। বিজেপি একুশে ক্ষমতায় আসছে। মানুষ তৃণমূলের বিকল্প হিসেবে বাংলায় বিজেপিকে বেছে নিয়েছে তাই বিজেপিতে যোগদান করতে এবং পদপ্রার্থী হতে চাইছে মানুষ।
তবে বিজেপিতে এভাবে প্রার্থী নির্বাচন হয়না। কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব থেকে পদপ্রার্থী নির্বাচন করা হয়। তাই নেতারা বলছেন কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব অথবা সভাপতির কাছে আবেদন পত্র জমা দিতে। তবে বিশ্বপ্রিয় বাবুর মতে এটি সত্যিই খুব ভালো লক্ষণ কারন ২০১৬ সালে বিজেপি ক্ষমতায় আসার মত জায়গায় ছিল না। তাই তৃণমূলের বিরুদ্ধে মানুষের অসন্তোষ থাকা সত্ত্বেও তৃণমূল ক্ষমতায় আসে। কিন্তু ২০১৮ সালের পর সার্বিক চিত্রে বদল ঘটে এবং বর্তমানে মানুষ বিজেপিকেই বেছে নিচ্ছে।
তৃণমূলে ভাঙল প্রসঙ্গে তিনি বলেন তৃণমূল শিবিরে ভাঙনে অবশ্যই বাড়তি সুবিধা যোগাবে বিজেপিকে।