Breaking! ১৪ ই আগস্টের জন্য বিশেষ ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর

১৯৪৭ সালের ১৫ আগস্ট ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ থেকে স্বাধীনতা পেয়েছিল ভারতবর্ষ। স্যার পেথিক লরেন্সের নেতৃত্বে ক্যাবিনেট মিশন প্লানের অন্তর্গত চিন্তাভাবনা বিভাজিত হয়েছিল ভারত এবং তৈরি হয়েছিল পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তান। পরবর্তীকালে পূর্ব পাকিস্তান বাংলাদেশে রূপান্তরিত হয়।

স্বাধীনতার সেই দিনে একদিকে যেমন ছিল পরাধীনতার শিকল থেকে মুক্তি পেয়ে জয়-উল্লাস, অন্যদিকে ছিল ধর্মের ভিত্তিতে দেশভাগের কারণে একাধিক রক্তক্ষয়ী দাঙ্গা যেখানে হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়। এই দাঙ্গায় মূলত ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল পাঞ্জাব, জম্মু-কাশ্মীর, পশ্চিমবঙ্গ এবং অসম। দেশভাগের আনন্দের মাঝে রক্তক্ষয়ী দাঙ্গা আজও ভারতবাসী স্মৃতিতে গেঁথে আছে।

সেই দাঙ্গায় বলিদান দেওয়া মানুষদের সম্মানে এবং হাজারো নিহত ভারতবাসীর স্মৃতির উদ্দেশ্যে ১৪ আগস্ট “বিভাজন বিভীষিকা স্মৃতি দিবস” হিসাবে পালন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলেন নরেন্দ্র মোদি সরকার। প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং ট্যুইট করে জানিয়েছেন যে ঘৃণা এবং হিংসার কারণে একাধিক মানুষকে ঘর ছাড়া হতে হয়েছে এবং নিজের স্বভূমিকে রক্ষার্থে লক্ষাধিক মানুষ আত্মবলিদান দিয়েছেন। তাই সেই মহাত্মাদের সম্মান জানিয়ে এই দিনটি পালন করার সিদ্ধান্ত নিল মোদি সরকার।

এতদিন বিজেপি এবং সংঘ পরিবারের তরফ থেকে ১৪ ই আগস্ট “অখন্ড ভারত দিবস” হিসেবে পালন করা হতো।